32.8 C
Rajshahi
Sunday, January 17, 2021
Home সারাদেশ বিলুপ্তপ্রায় গেছো শামুকের কৃত্রিম প্রজননে সাফল্য

বিলুপ্তপ্রায় গেছো শামুকের কৃত্রিম প্রজননে সাফল্য

রাবি প্রতিনিধি: পরিবেশের ক্ষুদ্র একটি প্রাণী শামুক। যাকে প্রকৃতির ফিল্টার বলা হয়ে থাকে। দেশে বিভিন্ন জায়গায় এখন শামুক বলতে গেলে প্রায় বিলুপ্তির পথে। বিলুপ্তির পথে থাকা ‘প্রকৃতির মুক্তা’ খ্যাত গেছো শামুকের কৃত্রিম প্রজননে সাফল্য পেয়েছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) একদল গবেষক। তারাই বিশ্বে প্রথম গেছো শামুকের কৃত্রিম প্রজনন করতে সক্ষম হয়েছেন বলে দাবি গবেষকদের।
চলতি বছরের মার্চে শামুকটি নিয়ে গবেষণা শুরু করেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণ রসায়ন ও অনুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. শাহরিয়ার শোভন। গবেষক ও গবেষণা সহকারী মাস্টার্সের শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ হিল কাফি ও রুপময় তংচঙ্গা নামের দুই শিক্ষার্থী রাজশাহী ও পার্বত্য চট্টগ্রামের দুটি জায়গা থেকে দুটি গেছো শামুক সংগ্রহ করেন। গবেষণা শুরুর ৬ মাসের পরিশ্রমে এ সফলতা অর্জন হলো বলে জানান অধ্যাপক শোভন।
শামুকটি সম্পর্কে জানতে চাইলে অধ্যাপক শোভন বলেন, সাধারণত শামুক অনেকগুলো ডিম দেয়। কিন্তু গেছো শামুক সে তুলনায় কম ডিম দেয়।রাজশাহীর শামুকটি দিয়ে প্রজনন সফলতা পাওয়া গেছে। ছয়টি বাচ্চা পেয়েছি আমরা। কিন্তু আমরা চারটি বাচ্চাকে বাঁচাতে সক্ষম হয়েছি। শামুকটির আদি নিবাস আমেরিকার ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যে।
শোভন আরও বলেন, এর আগে দেশি শামুকের বিষয়ে একটি সার্ভে করেছি। সেখানে দেখতে পেয়েছি, এই গেছো শামুক খুবই দুর্লভ প্রকৃতির। এই জাতীয় শামুক পার্বত্য চট্টগ্রাম ও রাজশাহীর কিছু অঞ্চলে পাওয়া যায়। যদিও তার পরিমাণ খুব কম। দুই বছর ধরে খুঁজছিলাম তবে কোথাও পাওয়া যাচ্ছিল না। অনেক খুঁজে অবশেষে পেয়েছি। নির্বিচারে বৃক্ষ, বনজঙ্গল নিধন, পরিবেশের উপর ক্ষতিকর প্রভাবের কারণে বিলুপ্ত হতে বসেছে এই প্রজাতির শামুকগুলো।
কেমিক্যাল ইকোলজি ও দেশের জীববৈচিত্র সংরক্ষণে ২০১৮ সাল থেকে জাপানি বিজ্ঞানীদের সঙ্গে কাজ করছে প্রকল্পটি। এরই অংশ হিসেবে এই শামুক সংরক্ষণে এগিয়ে এসেছেন অধ্যাপক শোভন ও তার গবেষক দল। এ গবেষণা কাজে সহযোগিতা করেন কয়েকজন জাপানি গবেষক। গবেষণার জন্য জাপানি গবেষকদের সঙ্গে একটি সমঝোতা চুক্তিও করেছেন।
এই শামুক সংরক্ষণে কী প্রয়োজন রয়েছে এবং এতে কী উপকার পাওয়া যাবে- এবিষয়ে জানতে চাইলে গবেষক শোভন বলেন, কৃষি জমিতে বড় এক ধরনের শামুক দেখা যায়। যারা গাছপালা খেয়ে ফেলে ফসলের ক্ষতি করে। কিন্তু গেছো শামুক গাছেই থাকে, অথচ গাছের কোন ক্ষতি করে না। বরং উদ্ভিদের গায়ে যেসব ক্ষতিকর অণুজীব লেগে থাকে। সেগুলো খেয়ে উদ্ভিদকে রক্ষা করে এই শামুক।
প্রসঙ্গত, এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের হাওয়াই অঙ্গরাজ্যে ডেভিসসিসকো নামের একজন গবেষক সাধারণ শামুকের কৃত্রিম প্রজননে সফলতা পান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

রাজশাহী কলেজের অধ্যক্ষ হবিবুর রহমানকে সংবর্ধনা

রাজশাহী কলেজ এইচএসসি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে রাজশাহী কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মহা. হবিবুর রহমানকে বিদায় সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজশাহী...

সাংবাদিক হিলালী ওয়াদুদের মৃত্যু

এফএনএস: দৈনিক ভোরের কাগজের জ্যেষ্ঠ সহ-সম্পাদক হিলালী ওয়াদুদ চৌধুরী আর নেই। গতকাল শুক্রবার সকালে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান তিনি। ঢাকা...

গোদাগাড়ীর কাদমা হাইস্কুলের ভবন না থাকায় ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষা কার্যক্রম

নিজস্ব প্রতিবেদক: গোদাগাড়ীর কাদমা হাই স্কুল ১৯৯৭ইং সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এরপর থেকে অত্র বিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্মচারীরা অত্যন্ত কষ্ট করে অনেক ত্যাগ স্বীকার...

রাজশাহীতে মাসব্যাপী বিসিক-ঐক্য উদ্যোক্তা মেলার উদ্বোধন

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক) ও ঐক্য ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে বিসিক শিল্পনগরী, রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী মঠপুকুর সংলগ্ন মাঠে বঙ্গবন্ধুর...

Recent Comments