32.8 C
Rajshahi
Saturday, January 23, 2021
Home মহানগর রাজশাহীর চরে পাতকুয়ায় সেচ ২০ টাকা ঘণ্টা

রাজশাহীর চরে পাতকুয়ায় সেচ ২০ টাকা ঘণ্টা

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীর চর মাজারদিয়া এলাকায় ইতোমধ্যে পাঁচটি পাতকুয়া স্থাপন করেছে বিএমডিএ। সৌর বিদ্যুৎ চালিত এসব পাতকুয়ায় পর্যাপ্ত পানি উঠছে। চাষিরা মাত্র ২০ টাকায় এক ঘণ্টা পানি নিতে পারছেন পাতকুয়া থেকে।
এক সময় রাজশাহীর গ্রামে গ্রামে সুপেয় পানির আধার ছিল পাতকুয়া। সাবমার্সিবল পাম্প, গভীর ও অগভীর নলকূপ আসার পর পাতকুয়া আর কেউ রাখেনি। তবে এখন আবার পাতকুয়ার প্রয়োজন অনুভব করছেন বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিএমডিএ) প্রকৌশলীরা। কৃষি জমির সেচকাজের এখন এই পাতকুয়া স্থাপন করা হচ্ছে।
অথচ বরেন্দ্র অঞ্চলে বিএমডিএ’র বিদ্যুৎ চালিত গভীর নলকূপ থেকে এক ঘণ্টা পানি নিতে হলে চাষিদের খরচ হয় ৮৫ থেকে ১২৫ টাকা। সেক্ষেত্রে সৌর বিদ্যুতের এই পাতকুয়া থেকে চাষিরা খুবই সাশ্রয়ী মূল্যে পানি পাচ্ছেন।
গত এক বছর আগে রাজশাহীর পবা উপজেলার চরমাজারদিয়া স্কুলমাঠ এলাকা, খাসমালপাড়া, পশ্চিমপাড়া, পূর্বপাড়া এবং ষাট বিঘার মাঠে পাঁচটি পাতকুয়া স্থাপন করেছে বিএমডিএ। এর মধ্যে ষাট বিঘার মাঠের পাতকুয়াটি সবচেয়ে বড়। এটি স্থাপনে ব্যয় হয়েছে প্রায় ২৫ লাখ টাকা। ছোট অন্য চারটির এক একটি পাতকুয়া স্থাপনে ব্যয় হয়েছে প্রায় ১৪ লাখ টাকা।
পাতকুয়া ভূগর্ভস্থ পানির স্তরের নিচ পর্যন্ত গোলাকার আকৃতিতে মাটি খনন করে চারপাশ থেকে চুয়ানো পানি ধরে রাখার আধার। এসব পানি এলএলপির মাধ্যমে প্রথমে একটি ট্যাংকে তোলা হয়। তারপর সেই ট্যাংক থেকে পাইপের মাধ্যমে পানি চলে যায় চাষির ফসলের ক্ষেতে। ফলে পাতকুয়ার চারপাশে চরের মাটিতে এখন নির্বিঘেœ চাষাবাদ করা হচ্ছে নানা রকম সবজির।
চর মাজারদিয়া স্কুলমাঠ এলাকার একটি পাতকুয়ার অপারেটর মো. টিয়া জানান, তার পাতকুয়াটি ২০ থেকে ২২ বিঘা ফসল চাষাবাদ করতে পারে। ভোর ৬টায় সূর্য ওঠার সাথে সাথে সোলার প্যানেল কাজ করা শুরু করে। তখন থেকেই পানি দেয়া শুরু হয়। সন্ধ্যায় সূর্য নামার সময় পর্যন্ত সেচ দেয়া সম্ভব হয়। এক ঘণ্টায় একটি পাতকুয়া ১০ কাঠা জমিতে পানি দিতে পারে।
তিনি আরও জানান, এক ঘণ্টা পানির জন্য কৃষকের কাছ থেকে মাত্র ২০ টাকা নেয়া হয়। কোন যন্ত্রাংশ কেনার প্রয়োজন হলে এই টাকা ব্যয় করা হবে। তবে এক বছর ধরে চললেও তার পাতকুয়ার কোন যন্ত্রাংশ কিনতে হয়নি। তার পাতকুয়া থেকে স্কুল মাঠ, বাজার ও ক্লিনিকেও ট্যাপের মাধ্যমে পানি দেয়া হয়। এই পাতকুয়া থেকে স্থানীয় চাষিরা খুব ভাল উপকার পাচ্ছেন।
পাতকুয়ার পাশের চাষি আফজাল হোসেন বলেন, চরের জমি খুব উর্বর। শুধু পানি পেলেই এখানে ভাল ফসল ফলে। সার-কীটনাশকের প্রয়োজন হয় না। কিন্তু এতদিন পানির অভাবেই তাদের চাষাবাদ ব্যহত হচ্ছিল। এখন পাতকুয়ার পানিতে তার জমিতে সব সময় চাষাবাদ হচ্ছে।
পাতকুয়া খননের মাধ্যমে স্বল্প সেচের ফসল উৎপাদন প্রকল্পের পরিচালক বিএমডিএ’র নির্বাহী প্রকৌশলী শিবির আহমেদ বলেন, পাতকুয়া বসানোর সুফল পাচ্ছেন চরের বাসিন্দারা। এই পানি ব্যবহার করছেন সাত থেকে আট হাজার মানুষ। পাতকুয়াগুলো স্বল্প খরচে পদ্মার চরে পানির নিশ্চয়তা এবং সবুজায়ন সৃষ্টিতে ভূমিকা রাখছে। আরও বেশি সংখ্যক পাতকুয়া বসানোর পরিকল্পনা তাদের আছে আগামীতে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

রাজশাহী কলেজের অধ্যক্ষ হবিবুর রহমানকে সংবর্ধনা

রাজশাহী কলেজ এইচএসসি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে রাজশাহী কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মহা. হবিবুর রহমানকে বিদায় সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজশাহী...

সাংবাদিক হিলালী ওয়াদুদের মৃত্যু

এফএনএস: দৈনিক ভোরের কাগজের জ্যেষ্ঠ সহ-সম্পাদক হিলালী ওয়াদুদ চৌধুরী আর নেই। গতকাল শুক্রবার সকালে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান তিনি। ঢাকা...

গোদাগাড়ীর কাদমা হাইস্কুলের ভবন না থাকায় ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষা কার্যক্রম

নিজস্ব প্রতিবেদক: গোদাগাড়ীর কাদমা হাই স্কুল ১৯৯৭ইং সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এরপর থেকে অত্র বিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্মচারীরা অত্যন্ত কষ্ট করে অনেক ত্যাগ স্বীকার...

রাজশাহীতে মাসব্যাপী বিসিক-ঐক্য উদ্যোক্তা মেলার উদ্বোধন

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক) ও ঐক্য ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে বিসিক শিল্পনগরী, রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী মঠপুকুর সংলগ্ন মাঠে বঙ্গবন্ধুর...

Recent Comments