32.8 C
Rajshahi
Tuesday, June 22, 2021
Home সম্পাদকীয় দুর্নীতির লাগাম না টানলে চড়া মূল্য দিতে হবে

দুর্নীতির লাগাম না টানলে চড়া মূল্য দিতে হবে

সরকারি দপ্তরের ঘুষ-দুর্নীতি এখন আর কোনো গোপন বিষয় নয়। কেরানি থেকে শুরু করে শীর্ষ কর্মকর্তা অনেকেই কোটি কোটি টাকার দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত। অবৈধভাবে এত বিপুল পরিমাণ অর্থ উপার্জনের পরও তাঁদের লোভ কমে না। প্রকাশিত খবর থেকে জানা যায়, অনেক কর্মকর্তাই সরকারি গাড়ির জ¦ালানি বাবদ ভুয়া বিল-ভাউচার দিয়ে প্রতি মাসে ২৫ থেকে ৫০ হাজার টাকা তুলে নিচ্ছেন। এমন অভিযোগ রয়েছে ‘ক্ষমতাধর’ কিছু সচিবের বিরুদ্ধেও। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে বারবার চিঠি দিয়ে সতর্ক করা হলেও তা কোনো কাজেই আসছে না। সম্প্রতি বিষয়টি উল্লেখ করে দুর্নীতি দমন কমিশন থেকেও সতর্ক করা হয়েছে; কিন্তু তাতেও অবস্থার কোনো পরিবর্তন হয়নি। দুঃখজনক হলেও সত্য যে এমন অনিয়মে এ পর্যন্ত কারো বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কোনো নজির তৈরি হয়নি। ‘প্রাধিকারপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তাদের সুদমুক্ত ঋণ এবং গাড়িসেবা নগদায়ন নীতিমালা’র আওতায় কর্মকর্তারা সরকারি টাকায় ব্যক্তিগত গাড়ি পান। সর্বোচ্চ ৩০ লাখ টাকা ঋণ নিয়ে একজন কর্মকর্তা ১২ লাখ টাকা পর্যন্ত কিস্তি দিলেই গাড়িটি ব্যক্তিগত হয়ে যায়। নীতিমালা অনুযায়ী সেসব কর্মকর্তা প্রতি মাসে ব্যক্তিগত গাড়ির জন্য সরকারি খরচের অর্ধেক অর্থাৎ ২৫ হাজার টাকা করে নেবেন; কিন্তু অনেক সচিব বিষয়টি জানার পরও সরকারি কোষাগার থেকে গাড়ির খরচ বাবদ ২৫ হাজার টাকার বদলে ৫০ হাজার টাকাই তুলে নিচ্ছেন। আবার অনেক কর্মকর্তা ব্যক্তিগত গাড়ি বসিয়ে রেখে মন্ত্রণালয় ও বিভাগের পরিবহন পুলের গাড়িতে চড়েন; কিন্তু মাস শেষে ব্যক্তিগত গাড়ির জন্য ৫০ হাজার টাকা ঠিকই তুলে নেন। নৈতিকতাবর্জিত এই কর্মকর্তা অবৈধ উপার্জনের কোনো লোভই সংবরণ করতে পারবেন না, তাতে রাষ্ট্রের যত ক্ষতি হয় হোক।
দুদকের তথ্য মতে, প্রতিবছর জিডিপির ২ থেকে ৩ শতাংশ পর্যন্ত ক্ষতি হয় দুর্নীতির কারণে। টিআইবি ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের গবেষণায় দেখা যায়, ক্ষতির পরিমাণ আরো অনেক বেশি। সম্প্রতি পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন জানিয়েছেন, বিদেশে টাকা পাচারকারীদের মধ্যে রাজনীতিবিদদের তুলনায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীর সংখ্যা বেশি। তিনি বলেন, কানাডায় খবর নিয়েছি, প্রাথমিক কিছু সত্যতা পেয়েছি। মনে করছিলাম, রাজনীতিবিদদের সংখ্যা বেশি হবে। কিন্তু দেখা গেল রাজনীতিবিদ চারজন। আর সরকারি কর্মচারীর সংখ্যা বেশি। এ ছাড়াও কিছু ব্যবসায়ী আছে। কিন্তু বিদেশে যদি কেউ বৈধভাবে টাকা নেয়, তাহলে কোনো আপত্তি নেই। তবে অবৈধভাবে পাচার করলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে এই ‘ব্যবস্থা’ নেওয়ার কথা দায়িত্বশীলদের মুখে অহরহই শোনা গেলেও বাস্তবায়নের বেলা দেখা যায় ভিন্ন চিত্র। রাষ্ট্রীয় প্রশাসনের শীর্ষপর্যায়েই যদি এত অনিয়ম-দুর্নীতি থাকে, তাহলে রাষ্ট্রীয় স্বার্থের হেফাজত করবে কে? রাষ্ট্রীয় প্রশাসনের সঙ্গে জড়িতদের অনেক সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হয়েছে। এবার অনিয়ম-দুর্নীতির লাগাম টানতে হবে। প্রশাসনের দুর্নীতি রোধে দুদকসহ সরকারের দুর্নীতিবিরোধী সব সংস্থাকে কাজে লাগাতে হবে। এখনই দুর্নীতির লাগাম টেনে ধরতে না পারলে ভবিষ্যতে কঠিন মূল্য দিতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

পবায় মডেল পোল্ট্রি খামার প্রতিষ্ঠার জন্য মতবিনিময় সভা

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীর পবা উপজেলায় কনজুমারস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) ও প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর, পবা, রাজশাহী এর যৌথ আয়োজনে মডেল খামারী নির্বাচন বিষয়ক...

জনস্বাস্থ্য সুরক্ষায় শীঘ্রই আসছে নীতিমালা

নিজস্ব প্রতিবেদক: খাদ্যে ট্রান্সফ্যাট একটি অযাচিত উপাদান এবং তা নিত্য খাদ্য দ্রব্যের সাথে গ্রহণের ফলে যে সকল স্বাস্থ্যক্ষতি ও মৃত্যু সংঘটিত হচ্ছে...

বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ টি-২০ ক্রিকেট চ্যাম্পিয়ন ফাইটার রাজশাহী

নিজস্ব প্রতিবেদক: কুমারপাড়া রাইডার্স কে ১৯ রানে পরাজিত করে রাঙ্গাপরী ১ম বঙ্গবন্ধু টি-২০ গো- কাপ ক্রিকেট প্রতিযোগিতার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে...

ক্ষুধা-দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে জয়ী হলেই উন্নয়নের মহাসড়কে যাত্রার সাহস আসে : প্রধানমন্ত্রী

এফএনএস: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, কৃষি সমৃদ্ধির উৎকর্ষে খাদ্য নিরাপত্তার স্বস্তি আসে। ক্ষুধা ও দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে সংগ্রামে জয়ী হলেই কেবল উন্নয়নের মহাসড়কে...

Recent Comments